1. admin@narayanganjtimes.com : ntimes :
  2. ahmedshawon75@gmail.com : ahmed shawon : ahmed shawon
সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৬:৫৬ অপরাহ্ন

‘সেদিন শেষ কথাও হতে পারে, নতুন করে কিছু শুরুও হতে পারে’

নারায়ণগঞ্জ টাইমস :
  • সোমবার, ১ মার্চ, ২০২১
  • ১২৮
‘সেদিন শেষ কথাও হতে পারে, নতুন করে কিছু শুরুও হতে পারে’

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান বলেছেন, শামীম ওসমান বলেছেন মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে যদি বাঁচিয়ে রাখেন আমি বিশ্বাস করি আগামী এক থেকে দুই বছর পরে নারায়ণগঞ্জ ঢাকা থেকে গুরুত্বপুর্ণ এলাকায় পরিনত হবে।

তিনি বলেন, তার প্রস্তাবনায় নারায়ণগঞ্জে মেডিকেল কলেজ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে সরকারের প্রক্রিয়া চলছে। যেটি ছিল তার দীর্ঘদিনের স্বপ্ন। যা বাস্তবায়ন হতে চলেছে।

তিনি বলেন, আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারিতে যদি জীবিত থাকি নারায়ণগঞ্জের মানুষের সামনে কিছু কথা বলবো। জবাদিহি করবো। তাদের সিদ্ধান্ত নিবো। নারায়ণগঞ্জের মানুষ আমাদের অনেক দিয়েছে। আমার বাবা-নেই মা নেই, নেত্রী (মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) হলো বাবা-মা। তিনি আমাদের অভিভাবক। ওনার সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিবো। এরপর আপনাদের সামনে সেদিন কথা বলবো। হয়তো সেদিন রাজনীতির শেষ কথাও হতে পারে কিংবা নতুন করে কিছু শুরুও হতে পারে।

রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) রাতে নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা লিঙ্ক রোডের পাশে নম পার্কে নিজের জন্মদিন অনুষ্ঠানের তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে “এ কে এম শামীম ওসমান” নামে ওয়েবসাইট পেইজ ও “একজন শামীম ওসমান” নামে ডকুমেন্টারি প্রকাশ করা হয়।

অনুষ্ঠানের ভিডিও লিঙ্ক:https://fb.watch/3YkL0uWFmf/

অনুষ্ঠানে শামীম ওসমানের স্ত্রী, দুই সন্তান, পুত্রবধূ, নাতী, বড় ভাই সেলিম ওসমান, বড় বোন নিগার ওসমান, ভাবী নাসরিন ওসমান, নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা, জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, সদর উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতা আলাউদ্দিন নাসিম, জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ, ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতা, জেলা আইনজীবী সমিতি, নাসিক কাউন্সিলর বৃন্দ, বিকেএমইএ ও নারায়ণগঞ্জ চেম্বার নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন ব্যবসায়ি সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, মহিলাআওয়ামীলীগসহ সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শামীম ওসমান বলেন, আমরা খেতে আসি নাই আমরা দিতে এসেছি। যেহেতু খেতে আসি নাই দিতে এসেছি তাই মনে করি পরবর্তী প্রজন্মকে সুযোগ করে দেয়া উচিৎ। আর আমরা ওই নীতিতে বিশ্বাস করি রাজনীতি কোন জমিদারিত্ব নয়। যার যোগত্যা আছে যার ত্যাগ আছে তাকে স্থান দেয়া। এবং এই বিশ্বাস নিয়ে আমরা থাকবো।

এসময় শামীম ওসমান উপস্থিত সকলের উদ্দেশ্যে বলেন, আমার জন্মদিনে আমার মা নাই, বাবা নাই। এই জন্য দোয়া চাই। এবং আপনাদের বাবা-মার জন্য দোয়া করি। যাদের বাবা-মা আছে তাদের বলছি বাবা-মায়ের দোয়াটা নিতে শিখেন। চেষ্টা করেন। চলে যাওয়ার পর আফছোস করবেন। আর বাবা-মায়ের দোয়া যদি থাকে কেউ ঠেকিয়ে রাখতে পারবে না। ইনশাআল্লাহ।

শামীম ওসমান বলেন, দেশে এখন দুই ধরনের মানুষ রাজনীতি করে। একটা হচ্ছে হৃদয় থেকে অন্যটা হচ্ছে মস্তিষ্ক দিয়ে। আমাদের যে ব্যাচটা তৈরী হয়েছিল ৭৫’এর পরে আমাদের রাজনীতিটা শুরু হয়েছিল হৃদয় থেকে। আরেকটা জেনারেশন হৃদয় দিয়ে করেছিল তা ৭১’এর আগে। তারা আমার বাবারা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে রাজনীতি করেছিল। যারা হৃদয় দিয়ে রাজনীতি করেছেন তারাই কিন্তু অকাতরে নিজের জীবন দিয়েছেন দেশের স্বাধীনতার জন্য। আর আমরা যারা ৭৫’র পর শুরু করেছি, কিছু বুঝি নাই। ক্লাস সেভেনের ছাত্র ছিলাম। কিংবা নাইন-টেন। আমরাও এসেছিলাম হৃদয় দিয়ে রাজনীতি করতে। বঙ্গবন্ধুর হত্যার বিচার চাই, গণতন্ত্রের মুক্তি চাই। কিন্তু সংগ্রাম যে এতো কঠিন ছিল এটা বুঝি নাই।

তিনি আরও বলেন, আজকে এখানে আরও অনেকেই উপস্থিত থাকার কথা ছিল। যারা আর কখনো আসবে না। আমার ছোট রাজনৈতিক জীবনে আমার হাত দিয়ে ৪৯ জন নেতাকর্মীকে দাফন করেছি। কিন্তু আমাদের দ্বারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে কেউ দাফনে যায় নাই।

শামীম ওসমান বলেন, আমার জীবনে রাজনীতিতে সবচেয়ে কঠিন পথ হচ্ছে এখন। কারণ আমরা চেষ্টা করেছি জাতিরজনকের কণ্যার যে গুন গুলি আছে সেগুলিকে রপ্ত করতে। তা হলো দেশ প্রেম। দেশের প্রতি ভালোবাসা। আল্লাহর প্রতি ভক্তি। এগুলি করা গেছে সহজে। বংশগতভাবেই এগুলি আমাদের মধ্যে এসেছে। সবচেয়ে বড় কঠিন যেটা হচ্ছে সেটা হলো ধৈয্য ধরা। এই ধৈয্য ধরাটা অনেক কঠিন। কিন্তু তারপরও চেষ্টা করছি ধৈয্য ধরতে। এবং আল্লাহর কাছে নিজে নিজে প্রার্থনা করি। অনেক মিথ্যা, অনেক অসত্য, খারাপ জিনিস যখন আঘাত করতে চায় ধৈয্যচ্যুতি ঘটতে চায় এবং ঘটলে কি হবে সেটাও জানি। কারণ আমরা আমাদের পায়ের তলের মাটির অবস্থার খবর রাখি। কিন্তু ওই চিন্তাটা করি আপা (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) যদি ধৈয্য ধরতে পারেন আমরা পারবো না কেন?

শামীম ওসমান বলেন, আজকে আমি কিছু বলবো না আমার রাজনৈতিক জীবন সম্পর্কে। আমার বড়ভাই সেলিমভাইসহ অনেকের আমার সম্পর্কে বলেছে। আমার বন্ধু আলাউদ্দিন নাসিম বলেছে আমি মন্ত্রীত্ব ফিরিয়ে দিয়েছি। আসলে আমরা একটা ব্যাচ। সেক্রিফাইস করেছি। ১৯৯৮ সালে আমাকে বলা হয়েছিল মন্ত্রী হওয়ার জন্য। কিন্তু আমার চেয়ে অনেক যোগ্যলোক সৈয়দ আশরাফ ভাইয়ের নাম প্রস্তাব করেছি। আপা আমাকে না আশরাফ ভাইকে বানান। এবং এর পরে যখন আবার মন্ত্রী হওয়ার জন্য বলা হলো তখন আমার বন্ধু আলা উদ্দিন নাসিম, নানকভাই, আজম মানে আমাদের যে ব্যাচ, ইভেন ওবায়দুল কাদের ভাই যার সাথে আমরা রাজনীতি করেছি। সবাই বকাবকি করেছে কেন মন্ত্রী হলাম না। কিন্তু আমাদের বেসিকটা হলো আমরা মানুষের মনে স্থান করে নিতে চাই। সেই জায়গায় যেতে আমরা আমাদের লক্ষ্যে কাজ করছি। এবং এখনো সেই চেষ্টাটা করছি। যাতে মৃত্যুর পর, কবে মরবো জানি না। প্রত্যোক দিন মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত আছি। শুধু ওই টুকু চাই আল্লাহর কাছে মৃত্যুর পর যাতে মানুষ বলে লোকটা ভালো ছিল। ক্ষমতায় থাকলে সবাই ভালো বলে। কিন্তু মৃত্যুর পর যদি বলে লোকটা ভালো ছিল আমার মনে হয় আল্লাহ তাকে কবুল করেন। আমরা এখন যেটা করি এটা ইবাদত। রাজনীতিটাকে ইবাদত হিসেবে নিয়েছি মানুষের সেবা করার জন্য।

আরও পড়ুন :আমি অলওয়েজ রাইট ট্র্যাকে : শামীম ওসমান

নিউজটি আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বা ব্যবহার করা  সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.narayanganjtimes.com কর্তৃক সংরক্ষিত।
Customized By NewsSmart