1. admin@narayanganjtimes.com : ntimes :
  2. ahmedshawon75@gmail.com : ahmed shawon : ahmed shawon
বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ০৬:০৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
এবার সন্ধ্যা পর বসতে দেয়ার দাবিতে নগরীতে হকারদের বিক্ষোভ টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ না হতেই মন্ডলপাড়া মডেল মসজিদের কাজ শুরু! রূপগঞ্জে ব্যাংক কর্মকর্তাদের সঙ্গে পুলিশের মতবিনিময় ও আলোচনা সভা বন্দরে ৩ কিশোর শ্রমিককে রক্তাক্ত জখম করল মালিক পক্ষ নারায়ণগঞ্জ সিটিকে স্বপ্নের রংতুলি দিয়ে সাজাতে চান আইভী : শাওন অংকন সোনারগাঁয়ের জামপুর ইউনিয়নে জাপার চেয়ারম্যান প্রার্থী আশরাফুল মেয়র আইভীর জন্য দোয়া চাইলেন কাউন্সিলর সুলতান ধ্বংসস্তুপ ব্যবস্থাপনা এবং অপারেশনাল প্ল্যান বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত রূপগঞ্জে ’স’ মিলে অগ্নিকান্ড : পোশাক কারখানায় আতঙ্ক কাঁচপুর হাইওয়ে থানায় ২৮ দিনে ২৬৩ মামলা

বন্দরে গ্যাস সংকটে ভোগান্তি

নারায়ণগঞ্জ টাইমস :
  • বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৪৪

“এখন ঘুমাই রাত ২টায় উঠতে হবে না হয় সকালে না খেয়ে থাকতে হবে” “খোকা রাতে বাড়িতে খাবার নেই বাইরে থেকে খাবার নিয়ে আসিস” শুনো আজকে লাঞ্চ অফিস থেকে বের হয়ে একটা হোটেল থেকে খেয়ে নিও চুলায় একফোটাও আগুন নাই, বাচ্চাকে যে আজকে কি খাওয়াবো??”

 

হ্যা, এগুলো কোন সংলাপ নয় ” তীব্র গ্যাস সংকটকালীন সময়ে এভাবেই নিজেদের নিত্যদিনের রুটিন তৈরি করছে বন্দরবাসী। কোথাও মধ্যরাতে কোথাও বা ভোরে ঠিক কখন নাগাদ চুলায় আগুন জ্বলবে তা না জানলে হয়তো আপনাকে না খেয়েই থাকতে হবে।

কিছু এলাকায় সন্ধ্যায় গ্যাসের চাপ খানিকটা বাড়লে দুই কাপ চায়ের পানি গরম হতেই লেগে যায় এক ঘণ্টা। আবার কোথাও সারা দিনই টিমটিম করে চুলা জ্বলে। কিন্তু তা রান্না করার জন্য যথেষ্ট নয়।

আবার কোথাও একেবারেই জ্বলে না চুলা। ঘোষিত শতভাগ বিদ্যুতায়িত বন্দর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গ্যাসের যে চরম সংকট চলছে, এটা তার একটি খন্ডচিত্র। গত কয়েক বছরে শীতের মৌসুমে ঘুরেফিরে আসা এই সংকট একটি স্থায়ী রূপ পেয়ে গেছে।

 

আর বরাবরের মতোই এই সংকট উত্তরণে কোন আশার বাণী শুনাতে পারছেন না এসব এলাকায় গ্যাস সঞ্চালন ও বিতরণের দায়িত্বে থাকা তিতাস গ্যাস কোম্পানি লিমিটেড।

 

এনিয়ে সামাজিক মাধ্যম সহ প্রায় ২৫ জন গ্রাহকের সঙ্গে কথা হয় প্রতিবেদকের। তাঁরা প্রত্যেকেই তাঁদের এলাকায় গ্যাস একেবারেই না থাকা কিংবা থাকলেও তা কাজে না আসার কথা বলেছেন।

এ অবস্থায় বিকল্প হিসেবে তাঁদের কেউ বেছে নিয়েছেন এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার কিংবা কেরোসিনের স্টোভ অথবা মাটির চুলা। আবার কেউ কেউ পরিস্থিতি অনুসারে হোটেল থেকে খাবার আনিয়ে দিন পার করছেন।

 

এবিষয়ে ধামগড় ইউনিয়নের এক গৃহিণী জানান, কতদিন যাবৎ বাড়িতে সকালের নাশতা তৈরি হয় না তার হিসেব আমার জানা নেই, সারা দিনে চুলা জ্বলে না। কেবল রাতের খাবারটা লাকরি-খড়ি দিতে বাড়িতে তৈরি করা হয়।

 

নাসিক’র ১৯নং ওয়ার্ডের স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, গ্যাস সংকটের এই মহামারী দশায় সপ্তাহখানের মধ্যে গ্যাসে এককাপ চা পর্যন্ত বানাতে পারেনি তিনি।

 

কলাগাছিয়া ইউনিয়নের এক বৃদ্ধা বলেন, আমি বাজান গরিব মানু “গ্যাসের বিলই ঠিক মত দিতে পারি না এলপি আনমু ক্যামনে??”

 

২৫ নং ওয়ার্ডের এক ভাড়াটিয়া বলেন,আমার স্বামী সকাল ৮ টায় অফিসে যায়, সে নাস্তাও খেতে পারে না, লাঞ্চের জন্য নিয়েও যেতে পারেনা।

 

এবিষয়ে তিতাসগ্যাস এন্ড ট্রান্সমিশন ও ডিস্ট্রিবিউশন কোঃ লিঃ এর সোনারগাঁও জোনের ডিজিএম প্রকৌশলী মনিরুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি ৭দিনের ছুটিতে আছেন বলে জানান, এবং অফিসে যোগাযোগের কথা বলেন।

নিউজটি আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বা ব্যবহার করা  সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.narayanganjtimes.com কর্তৃক সংরক্ষিত।
Customized By NewsSmart