1. admin@narayanganjtimes.com : ntimes :
  2. ahmedshawon75@gmail.com : ahmed shawon : ahmed shawon
শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৫০ পূর্বাহ্ন

নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগের মশাল মিছিল

নারায়ণগঞ্জ টাইমস :
  • সোমবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১২৮
নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগের মশাল মিছিল

জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে নারায়ণগঞ্জে মশাল মিছিল করেছে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা৷

সোমবার (৭ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় শহরের চাষাড়া থেকে ‘বঙ্গবন্ধু পাঠাগার’নামে সংগঠনের ব্যানারে বের হয়। শহরের প্রধান সড়ক বঙ্গবন্ধু সড়ক পদক্ষিন করে মিছিল শহরের দুই নম্বর রেলগেইটে গিয়ে শেষ হয়৷

আরো পড়ুন :নারায়ণগঞ্জে কারা ভাস্কর্য ভাঙ্গতে চান আমরা তাদের চিনি : খোকন সাহা

মশাল মিছিলে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদ আবু হাসনাত শহীদ মো. বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ নিজাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন সাজনু, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হক নিপু, মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন প্রমুখ।

এর আগে বিকেলে চাষাঢ়ায় শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়৷

প্রতিবাদ সমাবেশে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এড.আবু হাসনাত শহীদ মো.বাদল বলেন, এই নারায়ণগঞ্জের মাটি কারো একক মাটি নয়, হিন্দু-বৌদ্ধ-খিস্ট্রান-মুসলিম এই বাংলার মাটির সন্তান। যারা বাংলার মাটিতে অশান্তি করতে চান,বিশৃঙ্খলা করতে চান তাদের বলে দিচ্ছি, এই নারায়ণগঞ্জ মাটির সন্তানেরা আপোষ করবে না ।

এই নারায়ণগঞ্জ মাটিতে খান সাহেব ওসমান আলী, প্রয়াত একে এম সামসুজ্জোহা সবসময়ই অন্যায় বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছিলো। এই নারায়ণঞ্জের মাটি অন্যায়ের বিরুদ্ধে সবসময় প্রতিবাদ করেছে, নারায়ণঞ্জের মাটি আপোষ করে না। খেলা খেলতে চান? যুদ্ধা করতে চান, তবে রাঁতের আঁধারে কেনো? আলোতে নামেন। আমরা চ্যালেঞ্জ করে গেলাম, আলো বুঝি না, আঁধার বুঝি না।

নারারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ নিজাম বলেন, যখন মাদ্রাসায় আমাদের কোমলমতি শিশুদের যখন বলাৎকার করা হয় তখন প্রতিবাদ করেন না! মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে শারীরিক অত্যাচার করে তখন আমাদের আলেমগণরা তার ব্যাখা দেয় না! তারা ইসলামের নাম ব্যবহার করে, ইসলামের অপব্যাখ্যা দিয়ে। শান্তি ধর্ম ইসলাম সেই শান্তি ধর্মকে বির্তক সৃষ্টি করছে।

বাংলার মানুষের কাছে ও বিশ্বের কাছে বির্তকিত করার জন্য। এই ভাস্কর্য ইস্যু নিয়ে রাজনীতিক অস্থিতিশীল করার জন্য পায়তার চেষ্টা করছে। ভাস্কর্য সামনে রেখে এক ধরণের ষড়যন্ত্র চলছে । দেশের অর্থনীতির ধ্বংসের রাজনীতি চলছে। আফগান, সিরায়া রাষ্ট্রের মত একটি অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করার চেষ্টা চলছে। এসব অপচেষ্টা আমরা রুখে দেবো।

নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল বলেন, এই নারায়ণগঞ্জ ইতিহাস বাংলাদেশের ইতিহাস। ১৯৫২ , ১৯৬৯ ও ১৯৭১’র ইতিহাস। সকল রাজনীতির সূত্র এই নারাণগঞ্জ বায়তুল আমান। বায়তুল আমানেই এসবের সূত্রপাত হয়।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ তার হৃদপিন্ড। আর তার শরীর হচ্ছে নারায়ণগঞ্জ। আর সেই জায়গায় দাঁড়িযে কুষ্টিয়া জেলার ভাস্কর্য নিয়ে বলতে হয়। পরিষ্কার ভাষায় বলতে চাই ,আমাদের লক্ষ মা-বোনের ইজ্জতের উপর হাত দিবেন না। ত্রিশ লাক্ষ শহীদের উপর হাত দিবেন না। ভাস্কর্য নিয়ে কোন খেলা খেলবেন না।

শহর যুব লীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন ভুঁইয়া সাজনু বলেন, বাংলাদেশ যত দিন থাকবে ততদিন বঙ্গবন্ধু থাকবে। বঙ্গবন্ধু ভাস্কর্য মানে বাংলাদেশ, বাংলাদেশ মানে স্বাধীনতার পতাকা। বাংলার মানুষের মুখে হাসি ফুটাবার জন্য স্বাধিকার আন্দোলনের জন্য, বছরের পর বছর জেল খেটে ছিলেন আর সেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ভাস্কর্য উপর হামলা করা হয়! তখন লজ্জিত হয়, দুঃখ লাগে।

দুঃখ লাগে, এই কারণে যে নেতা বাংলার মানুষের হাসি ফুটাবার জন্য সারাজীবন কথা বলেছেন, তার ভাস্কর্যের উপর হামলা করা হয়। আপনারা মনে করবেননা, এটা ভাস্কর্যের উপর যে হামলা করা হয়েছে, সেটার মাধ্যমে বর্তমান সরকারকে উৎখাত করবে!

এটি বর্তমান সরকারকে উৎখাত করার জন্য না, বাংলাদেশকে একটি অস্থিতিশীল দেশ তৈরি করার জন্য। পাকিস্তান, আফগানিস্তানের মত দেশ তৈরি করার জন্য আজকে সেই মৌলবাদিরা কাজ করে যাচ্ছে। ভাস্কর্য হামলার মাধ্যমে এটি নির্দেশ করা হচ্ছে।

মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন বলেন, আমি আমার আওয়ামীলীগের অভিবাকদের কাছে আমার অনুরোধ থাকবে। এদেশেল মঙ্গলের জন্য সব সময় আন্দোলন সংগ্রাম করেছি। আন্দোলন করে আমরা জয় জয়কার হয়েছি। আপনাদেরকে অবগত করতে চাই, এটা শুধু আওয়ামীলীগের আন্দোলন না, এটা বাংলার মানুষের আন্দোল।

শুধু মনে করলে হবে না, বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙা হয়েছে, এটা বাংলার মানুষের মনে আঘাত করা হয়েছে। আমাদের ভাস্কর্য ভাঙ্গা হয়েছে। এই ষড়যন্ত্র আপনারা হাল্কা ভাবে নিবেন না। আগামী দিনে বড় বড় আঘাত আসবে। আগামী দিনের জন্য আপনারা সজাগ থাকবেন, যাতে এই ধরনের ষড়যন্ত্র মোকাবেলার জন্য।

বঙ্গবন্ধু পাঠাগার সভাপতি মাজাহারুল ইসলাম সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় এসময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসান হাসান নিপু , নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ দপ্তর সম্পাদক এম এ রাসেল, উপ-দপ্তর সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, জেলা যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক জাহঙ্গীর হোসেন গোগনগর ইউনিয়ন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো নুরহোসেন সওদাগর প্রমুখ। প্রতিবাদ সমাবেশ শেষে শহীদ মিনার থেকে মশাল মিছিল বের করে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে ২নং রেলগেট এলাকায় আওয়ামীলীগের কার্যালয়ে এসে শেষ করেন।

নিউজটি আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বা ব্যবহার করা  সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.narayanganjtimes.com কর্তৃক সংরক্ষিত।
Customized By NewsSmart