1. admin@narayanganjtimes.com : ntimes :
  2. ahmedshawon75@gmail.com : ahmed shawon : ahmed shawon
বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০৫:২৬ অপরাহ্ন

সিদ্ধিরগঞ্জে ডাকাত আখ্যা দিয়ে পুলিশকে মারধর, গ্রেপ্তার ৪

নারায়ণগঞ্জ টাইমস :
  • শনিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০২০
  • ৪৬২
জালকুড়ি, পুলিশ, মাইকে, ঘোষণা

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে ওয়ারেন্টের আসামি ধরতে গিয়ে মারধরের শিকার হয়েছেন তিন পুলিশ সদস্য৷ মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে এলাকার লোকজনকে জড়ো করে পুলিশ সদস্যদের মারধর করা হয় বলে অভিযোগ উঠেছে৷ ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় জালকুড়ি পশ্চিমপাড়া এলাকায়।

পরে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থল পৌছে পরিস্থিতি শান্ত করেন এবং ৪জনকে আটক করেন। তারা হলো-  আমিনুল ইসলাম (৫৫), মারুফ খান (১৮), সামছুজ্জামান (২৮) ও ওয়াসিম (২৯)।

হামলার শিকার সিদ্ধিরগঞ্জ থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএস আই) মো. নুরুজ্জামান বাদী হয়ে ১৩ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৩০-৪০ জনকে আসামি করে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। তারা হলেন- সিদ্ধিরগঞ্জের জালকুড়ি পশ্চিপাড়া এলাকার গোলাম আলীর ছেলে আমিনুল ইসলাম (৫৫), একই এলাকার মৃত সিরাজুল ইসলামের ছেলে মো. ওয়াসিম (২৯), গোদনাইল বাসস্ট্যান্ড এলাকার মো. সোলায়মানের ছেলে মো. সামসুজ্জামান (২৮), চাঁদপুর জেলা পুলিশ লাইনসের পেছনে বাবুরহাট এলাকার হুমায়ূন কবির খানের ছেলে মারুফ খান (১৮)৷ মামলায় আটক ৪জনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে৷ শনিবার (১৪ নভেম্বর) ৫দিনের রিমান্ড আবেদন করে তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মামলার অন্য আসামিরা হলো-জালকুড়ি কড়ইতলা এলাকার আমিনুল ইসলামের ছেলে রবিন (৩৫), জহুর আলীর ছেলে ফকির মনির (৪০), মৃত সুরুজ মিয়ার ছেলে মতিন (৪৫), আক্কাস (৪২), মতিনের ছেলে আশিক (২৫), বিল্লাল (৪০), মৃত চাঁন বাদশার ছেলে সেলিম (৪৫), ফজল মিয়ার ছেলে আলী হোসেন (৪৫), সোহাগ৷

মামলার এজাহারে এএসআই নুরুজ্জামান উল্লেখ করেন, সিদ্ধিরগঞ্জের জালকুড়ি কড়ইতলা এলাকার আবুল হোসেন মন্টুর ছেলে বিল্লাল হোসেন ওরফে বিল্লাল ডাকাতের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়েছে৷ আসামি বর্তমানে জালকুড়ির পশ্চিমপাড়া এলাকার আমিনুল ইসলামের বাড়িতে অবস্থান করছে খবর পেয়ে পরোয়ানা তামিল করতে কনস্টেবল মো. কহিনুর ও মমিনুর রহমানকে সাথে নিয়ে সেখানে যান৷ সাথে নাসির নামে স্থানীয় এক নৈশপ্রহরীও ছিলেন৷

এজাহারে তিনি আরও উল্লেখ করেন, আমিনুল ইসলামের বাড়ির সামনে গিয়ে বাইরে থেকে দরজা খুলতে বলা হয়৷ দরজা না খুলে ভেতর থেকে পুলিশের উদ্দেশে অশালীন ও উদ্ধত্যপূর্ণ কথাবার্তা বলতে থাকে৷ পরে ওই বাড়ির মালিক আমিনুল ইসলাম স্থানীয় মসজিদে ফোন করে জানায় তার বাড়িতে ডাকাত পড়েছে৷ এই খবর মসজিদের মাইকে ঘোষণা করা হলে এজাহারনামীয় আসামিসহ আরও ৩০-৪০ জন স্থানীয় লোকজন জড়ো হয় সেখানে৷ পরে পুলিশের পোশাক ধরে টানাহেচড়া করে এবং লাঠি দিয়ে এলোপাথারি মারধর করা হয়৷

এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামরুল ফারুক জানান, ঘটনাস্থল থেকে ৪জনকে আটক করা হয়েছে ৷ এবং এই ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে ৫দিনের চেয়ে শনিবার আদালতে পাঠানো হয়েছে।

নিউজটি আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ বা ব্যবহার করা  সম্পূর্ণ বেআইনি। সকল স্বত্ব www.narayanganjtimes.com কর্তৃক সংরক্ষিত।
Customized By NewsSmart