1. admin@narayanganjtimes.com : ntimes :
  2. ahmedshawon75@gmail.com : ahmed shawon : ahmed shawon
বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:১৭ অপরাহ্ন

ফতুল্লায় ইশা ছাত্র আন্দোলনের আলোচনা সভা

নারায়ণগঞ্জ টাইমস :
  • শনিবার, ১৫ আগস্ট, ২০২০
  • ১৮০

ইশা ছাত্র আন্দোলনের ২৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন নারায়ণগঞ্জ জেলার উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (১৫ আগস্ট) বিকালে ফতুল্লার শিবু মার্কেটের আইএসসিএ মিলনায়তনে শাখার সভাপতি শিব্বির আহমাদের সভাপতিত্বে ও সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল হান্নাননের সঞ্চালনায় সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় প্রশিক্ষণ সম্পাদক মুহাম্মাদ শরিফুল ইসলাম রিয়াদ বলেন, বহু শতাব্দীর পুরনো রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে যুদ্ধ ছাড়া, মানুষ হত্যার নতুন এক ব্যবস্থা  গড়ে উঠেছে গত শতাব্দী থেকে, যার নাম বন্দুকযুদ্ধ। কোনো দেশের সরকার, আইনি ব্যবস্থা কিংবা প্রশাসন ও পুলিশি ব্যবস্থা দুর্বল হয়ে পড়ে তখন আবির্ভাব হয় এই বন্দুক যুদ্ধের। পাকিস্তানের পতনের আগ দিয়ে কিংবা বাংলাদেশের জন্মের অল্প আগে এক নতুন রাজনৈতিক তত্ত্ব ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বব্যাপী, যার নাম শ্রেণি সংগ্রাম। মার্কসীয় অর্থনীতির গর্ভ থেকে জন্ম নেওয়া এই তত্ত্ব কোভিড-১৯ এর মতো চীনের মাও সে তুংয়ের মাথা থেকে ছড়িয়েছিল। এই রাজনৈতিক তত্ত্বের মাধ্যমেই বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের জন্ম। যার প্রভাব হয় সুদূরপ্রসারী।

স্বাধীন বাংলাদেশেও ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়ে এই তত্ত্ব। বাংলাদেশের জন্মের আগে এই দেশে পূর্ব পাকিস্তান কমিউনিস্ট পার্টি নামক দল আর মুক্তিযুদ্ধের সময় গড়ে ওঠা সিরাজ শিকদারের দল সর্বহারা পার্টি, আর স্বাধীনতার পরে ছাত্রলীগের গর্ভ থেকে জন্ম নেওয়া জাসদ পরবর্তীতে গণবাহিনী নামক সশস্ত্র রাজনৈতিক দলের জন্ম দেয়।

আমাদের দেশে বেশ কিছুকাল এই হত্যাকাণ্ড স্থিমিত হয়েছিল। পুনরায় এর যাত্রা শুরু হয় সম্ভবত ২০০৩/২০০৪ সালে নারায়ণগঞ্জের ডেভিড হত্যার ভিতর দিয়ে। এরপর সেই সময় শুরু হয় অপারেশন ক্লিন হার্ট। চলে প্রায় তিন মাস। যে সময় আরও ৫৭ জনের মতো বিচার বহির্ভূত হত্যার শিকার হয়। জন্ম নেয় আরেক নতুন বাহিনীর। নাম হয় RAB । সেনা বাহিনী ও পুলিশের সমন্বয় গঠিত হয় এই বাহিনী। এই এলিট বাহিনীর বিরুদ্ধে বিচার বহির্ভূত হত্যা ছাড়াও, নারায়ণগঞ্জে সাত খুনের অভিযোগ আছে। যে হত্যাকাণ্ডের বিচার আজও শেষ হয় নাই।

শরিফুল ইসলাম রিয়াদ তার বক্তব্যে আরো বলেন, কক্সবাজারের সর্বশেষ ঘটনায় দেশে এক নতুন মাত্রা যোগ হল। প্রাক্তন সেনা কর্মকর্তাদের সংগঠন রাওয়া ক্লাবকে সরাসরি মাঠে নামতে দেখা গেল অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহার মৃত্যুর ঘটনায়। মেজর (অব:) সিনহার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত পদক পাওয়া পুলিশের ওসি প্রদীপ কুমার কতজন মানুষকে হত্যা করেছিল তার সঠিক হিসাব বলা কঠিন, মতান্তরে ১৫০-২০০ মানুষ। ওসির সেই চলমান ক্রসফায়ারের বিরুদ্ধে এই দীর্ঘ সময়ে সমাজের কোন স্তরের মানুষই প্রতিবাদী হয় নাই। দেশে বহু টিভি চ্যানেল কিংবা পত্রিকা কোনো ইনভেস্টিগেটিং জার্নালিজম করে নাই।

ক্রসফায়ার বা এনকাউন্টারে নিহত বেশীরভাগের বিরুদ্ধে অভিযোগ হচ্ছে এরা ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসী, জঙ্গী অথবা মাদক ব্যবসায়ী। তর্কের খাতিরে যদি ধরে নেওয়া হয় যে, ক্রসফায়ারে নিহত সবাই খুনি, দাগি আসামী, ভয়ঙ্কর অপরাধী, চিহ্নিত সন্ত্রাসী, জঙ্গী, মাদক ব্যবসায়ী। কিন্তু সভ্য সমাজে তাদের দোষী মনে করে বিচার ব্যবস্থার পূর্বে হত্যা করার ক্ষমতা যদি কেউ নিজ হাতে তুলে নেয় তাহলে রাষ্ট্রের এতো ব্যয়বহুল ও ব্যাপক বিচার ব্যবস্থা জনগণের কাছে প্রশ্নবিদ্ধ। ফলে আইনের শাসন, সুশাসন, সু-সরকার, মানবাধিকার, জীবনের মূল্যবোধ সব সুন্দর সুন্দর শব্দগুলোও অর্থহীন হয়ে পড়বে। কাজেই দেশের শৃঙ্খলা বজায় রাখতে সরকারকে অবশ্যই বিচার বহির্ভূত হত্যা বন্ধ করতে হবে। নয়তো এদেশের মানুষ সরকার দলীয় প্রশাসন ও সরকারের বিরুদ্ধে দূর্বার গণআন্দোলন গড়ে তুলবে ইনশাআল্লাহ।

সভাপতির বক্তব্যে শিব্বির আহমাদ বলেন, ১৯৯১ সালের ২৩ আগস্ট ইসলামী আন্দোলনের সফল রূপকার, ইসলামের মুক্তিদাতা চরিত্রকে জনমানসে প্রতিষ্ঠিত করে ইসলামকে রাষ্ট্রীয় সমস্যার সমাধানে উপস্থানকারী বিপ্লবী রাহবার, তৎকালীন ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন (বর্তমান ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ) -এর আমির হযরত মাওলানা সৈয়দ মুহাম্মদ ফজলুল করীম, পীর সাহেব চরমোনাই রহ. কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হয় ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন।

ইশা ছাত্র আন্দোলন দেশের একমাত্র শতভাগ ছাত্রদের নেতৃত্বে পরিচালিত সংগঠন। দেশের ত্রিধারার শিক্ষাব্যবস্থার প্রতিটি ধারা থেকে শিক্ষার্থীর সমাবেশ ঘটাতে পেরেছে এই সংগঠনটি। আদর্শে অবিচলতা যেকোন আন্দোলন এর অপরিহার্য বিষয়। ইশা ছাত্র আন্দোলন আদর্শের ওপর দৃঢ় থাকার এক অনন্য দৃষ্টান্ত। শিক্ষার্থীদের শিক্ষা সংক্রান্ত যাবতীয় সমস্যায় গত ২৯ বছর যাবৎ কাজ করছে ইশা ছাত্র আন্দোলন।

জেলা সভাপতি শিব্বির আহমাদ আরো বলেন, তাসলিমা আন্দোলন, মালিবাগ মসজিদ রক্ষার আন্দোলন, মদের লাইসেন্স বন্ধের আন্দোলন, হিন্দুত্ববাদী শিক্ষানীতি বিরোধী আন্দোলন সবখানেই সক্রিয় ভূমিকা ছিল ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের। ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন সমাজ পরিবর্তনের এক দুর্জেয় কাফেলা। জাহিলী এ সমাজ ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তনই যার লক্ষ্য, নির্যাতিত নিপীড়িত মাজলুম মানবতাকে বন্দিত্বের শৃঙ্খলা ভেঙ্গে মুক্তির পথ দেখানোই যার নেশা, চিরশান্তির নিকেতন ইসলামী সমাজব্যবস্থা প্রতিষ্ঠাই যার সাধনা, শাহাদাতের আমীয় সুধা যার আকাঙ্খা, সে অপ্রতিরোধ্য বিপ্লবী সংগঠন “ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন”। এই সংগঠনটির ২৯ বছরের পথচলা, লাখ লাখ জানবাজ, সৎ, দক্ষ, যোগ্য, দেশপ্রেমিক ও খোদাভীরু ইসলামী আন্দোলন এর কর্মী তৈরি, জাতির ভবিষ্যৎ নেতৃত্ব সৃষ্টি, সুবিধা বঞ্চিত ছাত্র সমাজের পাশে দাড়ানো এবং দেশ-ধর্মের পক্ষে আন্দোলন সংগ্রাম এই সবকিছুই বিপ্লবী এক ছাত্র কাফেলার ইতিহাস ও অবদান। যা বাংলাদেশের ইতিহাসে সোনালি অক্ষরে লেখা থাকবে।

জেলা সভাপতি শিব্বির আহমাদ আরো বলেন, করোনা পরবর্তী সাধারণ মানুষের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। যা কোনো ভাবেই কাম্য নয়। অনতিবিলম্বে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় বন্ধ করতে হবে এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার   ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয় যে নাটক শুরু করেছে সেই নাটক বন্ধ করে অতি দ্রুত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ব্যবস্থা করতে হবে।

আলোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, ইশা ছাত্র আন্দোলন এর কেন্দ্রীয় আলিয়া মাদরাসা সম্পাদক শেখ ইহতেশাম বিল্লাহ আজিজী, কেন্দ্রীয় শূরা সদস্য মুহাম্মাদ আল আমিন সিদ্দিকী, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ নারায়ণগঞ্জ জেলার ছাত্র ও যুব বিষয়ক সম্পাদক মুহাম্মাদ জাহাঙ্গীর কবীর, জেলা সহ-সভাপতি আব্দুল্লাহ মুহাম্মাদ হাসান, প্রশিক্ষণ সম্পাদক মুহাম্মাদ আনোয়ার হোসেনসহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

নিউজটি আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2018narayanganjtimes
Customized By NewsSmart