1. admin@narayanganjtimes.com : ntimes :
  2. ahmedshawon75@gmail.com : ahmed shawon : ahmed shawon
রবিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১, ০৩:০৬ পূর্বাহ্ন

জাতীয় শোক দিবস পালনে বিভক্ত সোনারগাঁও আ,লীগ

নারায়ণগঞ্জ টাইমস :
  • বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২০
  • ১৮৫

আবারো সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামীলীগের বিভক্তি প্রকাশ্যে চলে এসেছে। ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস পালন নিয়ে দুই ধারায় বিভক্ত তারা। করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘদিন রাজনৈতিক কার্যক্রম বন্ধ থাকার পর জাতীয় শোক দিবস পালনকে কেন্দ্র করে উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির সঙ্গে সাবেক সাংসদ আবদুল্লাহ আল কায়সার পক্ষের প্রকাশ্যে বিভক্তি দেখা দিয়েছে।
জাতীয় শোক দিবস পালনের জন্য ইতিমধ্যে দফায় দফায় দুইপক্ষ আলাদাভাবে প্রস্তুতি সভার আয়োজন করায় বিভ্রান্তিতে পড়েছেন সংগঠনের সাধারণ নেতাকর্মীরা। গত বছরের ১৫ জুলাই ৮ সদস্যের উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। কিন্তু এই আহ্বায়ক কমিটির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে মাঠে নামেন আওয়ামী লীগের সাবেক সাংসদ আবদুল্লাহ আল কায়সারসহ উপজেলা আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নেতা। এদের মধ্যে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মাহফুজুর রহমান কালাম রয়েছেন।
অপরদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট সামসুল ইসলাম ভূঁইয়া, যুগ্ম আহ্বায়ক মাসুদুর রহমান মাসুম ও সদস্য অধ্যাপক আবু জাফর চৌধুরী বিরু আহ্বায়ক কমিটির ব্যানারে বিভিন্ন দলীয় কর্মসূচি পালন করতে থাকেন। এতে উপজেলা আওয়ামী লীগ প্রকাশ্যে বিভক্ত হয়ে পড়ে। আসন্ন জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচি সফল করার লক্ষ্যে উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটি গত ১১ আগস্ট নারায়ণগঞ্জ শহরে একটি রেস্তোরায় ১৫ আগস্ট উদযাপনে বর্ধিত সভা করে। সেখানে উপজেলার প্রতিটি ওয়ার্ডে শোক দিবসের অনুষ্ঠান করার সিদ্ধান্ত নেয়। এ জন্য কমিটি ব্যাপক আয়োজনের পরিকল্পনা করে।
অপরদিকে সাবেক সাংসদ আবদুল্লাহ আল কায়সারের নেতৃত্বে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন এবং মাহফুজুর রহমান কালামসহ তাদের সমর্থকরা গত ৮ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস পালনের জন্য সোনারগাঁয়ে প্রস্তুতি সভা করেন। উভয় পক্ষের আলাদা কর্মসূচি ঘোষণার কারণে সোনারগাঁয়ের রাজনৈতিক অঙ্গন এখন উত্তপ্ত।
এ ব্যাপারে অ্যাডভোকেট সামসুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন, ‘আমরা প্রতিটি ওয়ার্ডে শোক দিবসের কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আহ্বায়ক কমিটির সঙ্গে সোনারগাঁ জনপ্রতিনিধি ঐক্য ফোরামের সদস্যরাও থাকবেন। আমরা সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে কর্মসূচি পালনের পরিকল্পনা করেছি। সাবেক সাংসদ কায়সারসহ সবাইকে আহ্বান করেছি ঐক্যবদ্ধভাবে কর্মসূচি পালনের জন্য।’
সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান কালাম বলেন, সোনারগাঁও আওয়ামী লীগের তথাকথিত আহ্বায়ক কমিটির সোনারগাঁয়ের মাটিতে অবস্থান ও জনসমর্থন না থাকার কারণে তারা এলাকায় মিটিং করতে না পেরে নারায়ণগঞ্জ শহরের কোন এক রেস্তোরায় মিটিং করতে বাধ্য হয়েছে। এ ধরনের মিটিং ষড়যন্ত্রমূলক। খন্দকার মোশতাকের অনুসারীরাই সোনারগাঁও আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করার জন্য এ ধরনের গোপন ষড়যন্ত্রে তৎপর রয়েছে । বর্ধিত সভার নামে মিটিং করা হলেও এ সভায় ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে সাতটি ইউনিয়নের সভাপতি-সম্পাদক উপস্থিত ছিলেন না ।
সাবেক সাংসদ আবদুল্লাহ আল কায়সার বলেন, ‘আহ্বায়ক কমিটি কী কর্মসূচি পালন করবে তা আমরা জানি না। তারা আমাদের কিছুই জানায়নি। তবে করোনা পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে এবার ওয়ার্ডভিত্তিক কর্মসূচি না করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ইউনিয়নভিত্তিক কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমি সোনারগাঁয়ের একটি পৌরসভা ও দশটি ইউনিয়নের সব কর্মসূচিতেই উপস্থিত থাকব।

নিউজটি আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2018narayanganjtimes
Customized By NewsSmart